বাংলাদেশ-চীনের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের ভিডিও কনফারেন্স

শেয়ার করুন:


এই মুহূর্তে বাংলাদেশে যেহেতু টেস্টিং কিটের সংকট রয়েছে, সেজন্য গণহারে করোনা পরীক্ষা না করাই ভালো। টেস্টিং কিটগুলো বরং গুরুতর অসুস্থ ব্যক্তিদের জন্য রেখে দেয়া দরকার। বললেন চীনা বিশেষজ্ঞ ডা. ঝাং উয়েনহং।

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় বাংলাদেশের চিকিৎসকদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে অভিজ্ঞতা আদান-প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। ওই ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালিক। সোমবার চীনা দূতাবাস এই ভিডিও কনফারেন্সের আয়োজন করে।

চীনের অভিজ্ঞতা তুলে ধরতে গিয়ে ডা. ঝাং উয়েনহং বলেন, কোভিড-১৯ অল্প কিছুদিনের মধ্যে শেষ হবে বলে মনে হচ্ছে না। তবে এর মৃত্যুহার দুই থেকে তিন শতাংশে নামিয়ে আনা সম্ভব।

তিনি বলেন, যদি কিটগুলো দিয়ে গুরুতর অসুস্থদের পরীক্ষা করা না যায় তাহলে হাসপাতালের মধ্যেই করোনা ছড়াতে শুরু করবে। ফলে গোটা স্বাস্থ্য ব্যবস্থাই ভেঙে পড়তে পারে। প্রাথমিক পর্যায়ে ‘ফিভার ক্লিনিক’গুলোও রোগীদের স্ক্রিনিংয়ে সাহায্য করতে পারে।

ভিডিও কনফারেন্সে যোগ দিয়ে বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত লি জিমিং বলেন, করোনা মহামারির বিরুদ্ধে আমাদের যুদ্ধে বাংলাদেশের জনগণ দৃঢ়ভাবে পাশে দাঁড়িয়েছে। বাংলাদেশের ঘনিষ্ঠ বন্ধু হিসেবে যতটা সম্ভব পাশে থেকে চীনও তার প্রতিদান দিতে চায়। বৈশ্বিক এই মহামারিতে বাংলাদেশকে সম্প্রতি টেস্টিং কিট ছাড়াও প্রয়োজনীয় মেডিকেল যন্ত্রপাতি দিয়েছে চীন।


শেয়ার করুন:

রিপ্লাই/মন্তব্য করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন