Remove hair oiliness easily at your homeবর্তমান সময়ের নারীদের একটি বড় সমস্যা হল তৈলাক্ত চুল। এই সমস্যার কারণে নারীরা চুল বিভিন্ন স্টাইলে সাজাতে পারেনা, কারণ চুল খুবই চিটচিটে হয়ে যাই। যার ফলে খুব অস্বস্তিতে পরে তারা। এমনকি চুল খোলা রাখাও অনেক কঠিন হয়ে যায়। আজকে আমরা জানাবো কিভাবে এই সমস্যা থেকে আপনি মুক্তি পাবেন এবং আপনার চুল কিভাবে তেল মুক্ত করা যায়।

প্রতিদিন আপনি আপনার চুল ধুয়ে নিন এবং খুব সুন্দরভাবে চুল স্টাইল করে নিন এবং আপনি প্রস্তুত সারাদিন সুন্দরভাবে থাকার জন্য। কিন্তু কয়েক ঘন্টা পর আয়নাতে একবার নজর দিলে আপনি লক্ষ্য করবেন আপনার  চুল তৈলাক্ত এবং চিটচিটে হয়ে গেছে, যা দেখে মনে হবে আপনি এর আগে সকালে চুল একবারের জন্যও পরিষ্কার করেননি।

এর মানে হলো আপনার চুল তৈলাক্ত। তেলগ্রন্থির কারণে চুলের আগা ভাঙন থেকে রক্ষা পায়। নানা রকম কারণে যেমন হরমোনের ঊঠা-নামা, বংশগত কারণ অথবা আপনার চুলের প্রাকৃতিক গঠনের কারণে এই গ্রন্থিগুলো মাত্রাতিরিক্ত তেল নিঃসরণ করে। চিন্তার কোন কারণ নেই। আমাদের কাছে তৈলাক্ত চুলের জন্য কিছু ঘরোয়া উপায় আছে।

আজ আমরা আপনাদের কিছু টিপস দিব যা আপনাদের চুলের তেলতেলে ভাব কমিয়ে আনবে এবং আপনার চুল আরো বাউন্সি করবে। নিচে তৈলাক্ত চুলের জন্য ঘরের তৈরি কিছু টিপস দেওয়া হলো।

১. তৈলাক্ত চুলের জন্য শ্যাম্পু
যদি আপনার চুল তৈলাক্ত হয় তাহলে চুল পরিষ্কার এবং তেলতেলে মুক্ত রাখার জন্য প্রতিদিন শ্যাম্পু ব্যবহার করুন।

আপনার তৈলাক্ত চুলের জন্য নির্দিষ্ট একটি শ্যাম্পু বাছাই করে নিন। আপনার চুল যদি শুষ্ক হয়, তাহলে চুল ময়েশ্চারাইজ এবং নরম রাখার জন্য একটি পুষ্টিকর কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। যদি আপনার চুলের সাথে সাথে আপনার স্ক্যাল্পও তৈলাক্ত হয় তাহলে শ্যাম্পুই আপনার স্ক্যাল্প এবং চুল দুইটিরই একসাথে যত্ন নিন।

শ্যাম্পু করার সময় আপনার স্ক্যাল্প ম্যাসাজ করবেন। আপনার স্ক্যাল্পে লেগে থাকা তেল এবং ধুলাবালি পরিষ্কার করুন। সবসময় একটি নির্দিষ্ট শ্যাম্পু কিনুন যা সবসময় ব্যবহার করার জন্য উপযুক্ত।

২. ভালোভাবে ধুয়ে নিন
যখন শ্যাম্পু করবেন, তখন অবশ্যই চুল ভালোভাবে ধুয়ে নিবেন। ভালোভাবে চুলের শ্যাম্পু পরিষ্কার না করলে চুলে লেগে থাকা শ্যাম্পু আরো তেল এবং ময়লা বাড়াবে। চুলে কখনোই কোন সাবান বা শ্যাম্পু লেগে থাকতে দিবেন না। আপনার চুলে লেগে থাকা প্রতিটি সাবানের ফেনা ভালোভাবে ধোয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ। চুলে লেগে থাকা শ্যাম্পু শুধু আপনার চুল তৈলাক্ত এবং চিটচিটেই করেনা, এটি চুলের জন্য খুব ক্ষতিকর।

৩. প্রতিদিন শ্যাম্পু করুন
তেল নিঃসরণের ফলে ধুলাবালি এবং দূষিত কণা আপনার স্ক্যাল্পে জমে থাকে। তাই প্রতিদিন আপনি আপনার চুল শ্যাম্পু করুন। আপনাকে সতর্ক থাকতে হবে যাতে শ্যাম্পুটি খুব রুক্ষ না হয়। প্রতিদিন শ্যাম্পু করা আপনার স্ক্যাল্পকে সতেজ এবং পরিষ্কার রাখবে। শ্যাম্পু লাগানোর সময় আপনার আঙ্গুল দিয়ে আলতোভাবে স্ক্যাল্প ঘষুন, এতে করে স্ক্যাল্পে তেল জমে থাকার আর কোন সুযোগ থাকবেনা।

৪. সপ্তাহে একবার তেল ম্যাসাজ করুন
চুলের যত্নে তেল খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। নারিকেল তেলের সাথে বাদাম তেল মেশান। কয়েক ফোঁটা টি ট্রি অয়েল যোগ করুন। স্ক্যাল্প এবং মাথা ম্যাসাজ করার জন্য এই প্যাকটি ব্যবহার করুন। এটি ১ ঘন্টা পর্যন্ত মাথায় রেখে দিন। একটি ভালো মানের শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন এবং নিশ্চিত করুন ভালোভাবে আপনি আপনার চুল পরিষ্কার করেছেন। তেলের কোন চিহ্ন যাতে না থাকে। এটি আপনার স্ক্যাল্প এবং চুলে পুষ্টি জোগাতে সাহায্য করবে। একই সময়ে, যেহেতু আপনি এই তেল এক ঘন্টার বেশি সময় ধরে রাখতে পারবেন না, তাই এটি আপনার চুলে কোন নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে না। সারারাত চুলে তেল লাগিয়ে রাখবেন না কারণ তখন এই তেল আপনার চুলের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।
গরম তেলের ট্রিটমেন্ট সরাসরি স্ক্যাল্পে লাগানো তৈলাক্ত এবং চিটচিটে চুলে খুবই চমৎকার কাজ করে। আমি নিশ্চিত যে, আপনি আশ্চর্য হয়ে বলছেন, কি ভাবে এটি সম্ভব?

এখানে একটি সহজ কৌশল দেওয়া হল।

  • আপনার স্ক্যাল্পে আস্তে আস্তে তেল ম্যাসাজ করুন।
  • এরপরে তৈলাক্ত চুল ভালোভাবে ধুয়ে নিন।

২-৩ টেবিল চামচ আপেল সিডার ভিনেগার দিয়েও আপনি চুল ধুতে পারেন অথবা এক মগ পানিতে সাদা ভিনেগার গুলে নিয়ে তা মাথায় লাগাতে পারেন।
এটি আপনার চুলের গোড়া হাইড্রেট করে চুলকে মজবুত করে এবং এরপর পরেই চুল ধুয়ে ফেলার ফলে, আপনার চুলের অতিরিক্ত তেল চলে যায় এবং প্রয়োজনীয় পরিমাণ তেল চুলে রয়ে যায়।

৫. অ্যালোভেরা
প্রাকৃতিক উপায়গুলোর মধ্যে অ্যালোভেরা তৈলাক্ত চুলের জন্য সবচেয়ে উত্তম একটি পন্থা। এর জন্য যা প্রয়োজ

  • ১ কাপ হালকা শ্যাম্পু নিন।
  • ১ টেবিল চামচ লেবুর রস।
  • ১ চামচ তাজা অ্যালোভেরা জেল।

এগুলো ভালভাবে মিশিয়ে নিন এবং একটি বোতলে ভরে ফ্রিজে রেখে দিন। এই মিশ্রণটি প্রায় ১ সপ্তাহ ভালো থাকবে। তৈলাক্ততা দূর করতে প্রতিদিন শ্যাম্পুর এই মিশ্রণটি দিয়ে চুল ধুতে হবে।

আপনি একটি কন্ডিশনার বানাতে পারেন তাজা অ্যালোভেরা জেল (অথবা ভালো ব্র্যান্ডের প্যাকেটজাত অ্যালোভেরা জেল) ব্যবহার করে এবং এর সাথে শুধু ১ টেবিল চামচ আপেল সিডার ভিনেগার অথবা ২ টেবিল চামচ লেবুর রস অথবা দুইটির প্রতিটি ১ টেবিল চামচ করে মিশাতে হবে। এটা সবধরণের চুলের জন্য খুবই ভালো।

৬. সিরাম এবং গ্লসি জেল পরিহার করুন
তৈলাক্ত চুলের একটি প্রাকৃতিক উজ্জ্বলতা রয়েছে। তাই চুলে উজ্জ্বল সিরাম এবং গ্লসি জেল ব্যবহার করা পরিহার করুন। এগুলো আপনার চুলের জন্য দরকার নেই। এগুলো শুধু আপনার চুলে সমস্যা বাড়াবে।

৭. চুল অতিরিক্ত ব্রাশ করা থেকে বিরত থাকুন
আপনার চুল অতিরিক্ত ব্রাশ করবেন না। কারণ আপনি যতবার চুল ব্রাশ করবেন ততবার আপনার স্ক্যাল্প থেকে তেল নিঃসরণ হবে।

৮. স্ক্যাল্প নখ দিয়ে ঘষবেন না
কখনো খুব জোরে তোয়ালে দিয়ে স্ক্যাল্পে ঘষবেন না অথবা নখ দিয়ে আচড় দিবেন না। এটা আপনার স্ক্যাল্পে ক্ষত, তৈলাক্ত খুশকি অথবা তেল গ্রন্থিকে আরো তেল নিঃসরণে উৎসাহিত করে।

৯. ভিনেগার এবং লেবুর রসের মিশ্রণ
চিটচিটে ভাব দূর করার আরেকটি উপায় হল শ্যাম্পু করার পর ভিনেগার এবং লেবুর রসের মিশ্রণ দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলঅ। এর জন্য যা প্রয়োজন

  • ২ টেবিল চামচ সাদা ভিনেগার অথবা একটি লেবুর রস এক কাপ পানির সাথে ভালভাবে মিশিয়ে নিতে হবে। শ্যাম্পু করার পর, এই মিশ্রণটি দিয়ে চুল অবশ্যই ধুতে হবে এবং এর পরে কুসুম গরম পানি দিয়ে চুল আরেকবার ধুয়ে নিতে হবে।

১০. পুদিনা
পুদিনা পাতাও চুলের তৈলাক্ততা দূর করতে সাহায্য করে। ১ মুঠো পুদিনা পাতা ২ গ্লাস পানিতে ১৫-২০ মিনিটের জন্য ফুটিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি শ্যাম্পুতে মিশান এবং আপনার চুলে লাগান। পুদিনাতে এ্যাসট্রিনজেন্ট আছে যা চুলে লাগালে অতিরিক্ত তেল দূর করে।

১১. প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন
পানি আপনার শরীর থেকে জীবাণু এবং দূষণ নিঃশেষিত করতে সাহায্য করে। একটি স্বাস্থ্যকর স্ক্যাল্প এবং চুল পেতে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন।

১২. ডিমের কুসুম এবং লেবুর রসের মাস্ক
অতিরিক্ত তৈলাক্ততা দূর করার আরেকটি উপায় হল ডিমের কুসুম। এটা শুধু তৈলাক্ততা দূর করে না, এটি চুলের উজ্জ্বলতাও বাড়িয়ে দেয়। এটি তৈরি করতে যা প্রয়োজন-

  • ২ টি ডিমের কুসুম নিন
  • কয়েক ফোঁটা লেবুর রস এতে ঢালুন এবং ভালভাবে মিশ্রণ করুন। এরপর মিশ্রণটি আপনার ভিজা চুলে লাগান এবং ৫-৭ মিনিট রেখে দিন। এরপরে ভালোভাবে ধুয়ে নিন। চুলের তৈলাক্ততা থেকে মুক্তি পেতে এই মিশ্রণটি সপ্তাহে কমপক্ষে দুই থেকে ৩ বার ব্যবহার করতে হবে।

১৩. মেহেদি ট্রিটমেন্ট
আপনার চুল কন্ডিশনিং করতে মেহেদি ব্যবহার করুন। মেহেদিতে শুষ্কতার প্রভাব আছে, যা তৈলাক্ত স্ক্যাল্পের জন্য উপযুক্ত। আপনার মেহেদি প্যাকে দই মিশিয়ে নিন। ২ সপ্তাহ পরপর একবার মেহেদি ব্যবহার করুন।
আপনার স্ক্যাল্পে সবচেয়ে মানানসই এমন উপায়টি বেছে নিন এবং তৈলাক্ত চুলের সমস্যার কথা সম্পূর্ণভাবে ভুলে যান।
আশা করি তৈলাক্ত চুলের জন্য ঘরে তৈরি কৌশলের এই আর্টিকেলটি আপনাকে তৈলাক্ত চুলের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করবে।

মন্তব্য করুন

আপনার কমেন্ট লিখুন
আপনার নাম লিখুন