ঈদের আগে ক্রেতাদের কেনা-কাটার সুযোগ করে দিতে সীমিত পরিসরে দোকানপাট ও শপিং মল খোলার নির্দেশ দিয়েছে সরকার। যদিও যমুনা ফিউচার পার্ক (জেএফপি) খোলা হচ্ছে না বলে জানিয়ে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।
জেএফপি’র পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা।

একই সাথে করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে ঈদ শপিংয়ে না খোলার সিদ্ধান্তে রয়েছে বসুন্ধরা সিটি শপিং মল। বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান শপিং মলটি না খোলার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
এ ব্যাপারে বসুন্ধরা গ্রুপের উপদেষ্টা আবু তৈয়ব জানান, বসুন্ধরা সব সময় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করে থাকে। মানবতার কথা চিন্তা করেই বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন। করোনা ভাইরাস মহামারির শুরু থেকেই তিনি মানুষের পাশে আছেন। শপিং মল না খোলা তার আরেকটি যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ঈদের আগে বাজার করার জন্য শপিং মল খুলে দিলে ভিড় বাড়বে। আর এই ভিড় থেকেই বিপুল সংখ্যক মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে। এছাড়া স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক মঙ্গলবার (৫ মে) ঢাকায় ‘করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত’ টেকনিক্যাল কমিটির বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান ও শপিং মলগুলো খুলে দিলে দেশে করোনার সংক্রমণ আরও বাড়বে।

জন সাধারণের চলাচলে নিষেধাজ্ঞা শিথিল করে রমজান ও ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে সীমিত পরিসরে দোকানপাট ও শপিং মল খোলার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। আগামী ১০ মে খেলা হবে দোকান ও শপিং মলগুলো।
এদিকে সারাদেশের ব্যবসাকেন্দ্র, দোকানপাট ও শপিংমলে ক্রেতা-বিক্রেতা সবার জন্য বাধ্যতামূলক করা হয়েছে মাস্ক পরা।

ব্যবসা প্রতিষ্ঠান কীভাবে পরিচালিত হবে সে বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় নির্দেশনা দিয়ে পুলিশ, বিজিবি ও কোস্টগার্ডের মহাপরিচালক এবং আনসার ও ভিডিপির মহাপরিচালকের কাছে চিঠি পাঠিয়েছে মঙ্গলবা।
চিঠিতে বলা হয়েছে, সরকার দেশের বিভিন্ন জেলা/উপজেলায় অভ্যন্তরীণভাবে ব্যবসা-বাণিজ্য, দোকানপাট, শপিংমল আগামী ১০ মে থেকে সীমিত আকারে চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, হাট-বাজার, ব্যবসাকেন্দ্র, দোকানপাট ও শপিংমলগুলো সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৪টার মধ্যে সীমিত রাখতে হবে। তবে ফুটপাতে বা প্রকাশ্য স্থানে হকার/ফেরিওয়ালা/অস্থায়ী দোকানপাট বসতে দেওয়া যাবে না।
প্রতিটি শপিংমলে প্রবেশের ক্ষেত্রে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারসহ স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় ঘোষিত স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে হবে।
মাস্ক পরা ছাড়া কোনো ক্রেতা দোকানে প্রবেশ করতে পারবেন না। সব বিক্রেতা, দোকান কর্মচারীকে মাস্ক ও হ্যান্ডগ্লাভস পরতে হবে।
এজন্য প্রতিটি শপিংমল/বিপণিবিতানের সামনে সতর্কবাণী ‘স্বাস্থ্যবিধি না মানলে মৃত্যুঝুঁকি আছে’ সম্বলিত ব্যানার টাঙাতে বলেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
প্রতিটি মেট্রোপলিটন এলাকা এবং জেলা শহরে সংশ্লিষ্ট পুলিশ কমিশনার, জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপাররা আলোচনা করে ক্রেতা-বিক্রেতাদের সুবিধার্থে প্রয়োজন অনুযায়ী জোন ভাগ করে দেবেন বলে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে।
এছাড়া আন্তঃজেলা,আন্তঃউপজেলা যোগাযোগ/জনগণের চলাচল কঠোর চলাচল কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। অর্থাৎ এক উপজেলার লোক অন্য উপজেলায় এবং এক এক জেলার লোক অন্য জেলায় চলাচল করতে পারবে না।
রাত ৮টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কোনোভাবে বাড়ির বাইরে আসা যাবে না।
তবে জরুরি পরিষেবা, কৃষিপণ্য, খাদ্যসামগ্রী, রফতানি সামগ্রী, ওষুধ ইত্যাদি পরিবহন কাজে সড়ক ও নৌপথে যানবাহন চলাচল অব্যাহত থাকবে।
সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও সামাজিক অনুষ্ঠান বন্ধ থাকবে। আসন্ন ঈদের ছুটিতে সবাইকে নিজ নিজ এলাকা/কর্মস্থলে থাকতে হবে এবং আন্তঃজেলা/উপজেলা/বাড়িতে যাওয়ার ভ্রমণ থেকে নিবৃত্ত করতে হবে।

মন্তব্য করুন

আপনার কমেন্ট লিখুন
আপনার নাম লিখুন