মোতালেব হোসেন :

সৈয়দপুর প্রথম শ্রেণীর পৌরসভা ও ৫টি ইউনিয়ন পরিষদ নিয়ে সৈয়দপুর উপজেলা। সৈয়দপুর পৌরসভা এলাকায় বিমানবন্দর, ক্যান্টনমেন্ট, ১৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ প্রøান্ট চলমান, ২০ মেগাওয়াট গ্যাস টারবাইন সৈয়দপুর রেলওয়ে ওয়ার্কশপ, বিভাগীয় নগর রেল, বাউষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়, ক্যান্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ, লায়ন্স স্কুল এন্ড কলেজ, সানফ্লাওয়ার, ক্যান্ট বোর্ড, সরকারী কারিগরী মহাবিদ্যালয়, সৈয়দপুর সরকারী কলেজ, মহিলা কলেজ, আদর্শ কলেজসহ একাধিক নামীদামী ও বিলাসবহুল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নগরী সৈয়দপুর। এই শহরে রয়েছে একাধিক ছাত্রাবাস। আবাসিক বাসাবাড়িসহ অনেক অভিভাবক বাসা ভাড়া নিয়ে তাদের সন্তানদের নিয়ে থাকেন এই শহরে। শিক্ষার ক্ষেত্রে অধিক সুনাম কুড়িয়েছে এই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। কিন্তু বর্তমানে করোনাকালীন সময়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার কারণে গতি ধীর হলেও হুমকির মুখে পড়ছে শহরের পরিবেশ।
সৈয়দপুরে বর্তমানে মাদক নিয়ন্ত্রিত হয় দুইটি সেক্টর থেকে। গ্রাম পর্যায়ে ডিলারশীপ নিয়ন্ত্রন করে মাদক সম্রাট মোন্নাফ ও তার স্ত্রী পুত্রদ্বয়। মোন্নাফ জেলে গেলে সেক্টরের কমান্ড নিয়ন্ত্রন থাকে তার স্ত্রী মঞ্জুয়ারার হাতে। পৌর এলাকায় ইয়াবা , ফেন্সিডিল, গাঁজাসহ মরন মাদক নিয়ন্ত্রন হয় সৈয়দপুর শহরের মুন্সীপাড়া থেকে। গোপন সূত্রে জানা যায় এই নিয়ন্ত্রন রয়েছে সরকার দলীয় এক প্রভাবশালী এক যুবলীগ নেতার হাতে। এই নেতা দিনের বেলা জন দরদী সেজে লোক দেখানো সমাজ সেবার কাজ করলেও তার মূল ব্যবসা হলো মাদকের। তার পোষা ক্যাডার বাহিনী সারা শহরে বিভিন্ন এজেন্টের মাধ্যমে তার এই মাদকের সামাজ্য চালায়, তাদের মূল খদ্দের হলো বাউষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়, ক্যান্ট পাবলিক, লায়ন্স স্কুলসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ধনীর দুলালেরা। সন্ধ্যা হলেই তাদের কার্যক্রম শুরু হয় শহরের পাঁচ মাথা মোড় থেকে ক্যান্ট পাবলিক স্কুলের ব্রিজ পর্যন্ত।
মাদকের এই মরন থাবা থেকে যুবসমাজকে রক্ষা করতে স্থানীয় ৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম রয়েল তারই ওয়ার্ডে মাদক বিরোধী র‌্যালী ও সভার আয়োজন করেন। এ ব্যাপারে স্থানীয় অনেক ব্যাক্তিই সমালোচনা করেন যে কাউন্সিলর সাহেব ভালো করেই জানেন কে এই মাদক সম্রাট ও মাদক সম্রাটের বসবাস তারই ওয়ার্ডে, তিনি সরাসরি তার বিরুদ্ধে অবস্থান নিলেই তো ব্যাপারটা সহজ হতো এইসব র‌্যালী বা সভা করে আদৌ কি কোন লাভ হবে নাকি শুধু লোক দেখানো নেতাগিরী করার জন্য এতো আয়োজন।

রিপ্লাই দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here