ক্যাপ্টেন আবিদের স্ত্রীর মাথার খুলি আলাদা করে রাখা হয়েছে

শেয়ার করুন:

Captain Abid wifes skull keept separated
ঢাকা: নেপালে ইউএস-বাংলার উড়োজাহাজ বিধ্বস্তের ঘটনায় নিহত ক্যাপ্টেন আবিদ সুলতানের স্ত্রী আফসানা খানমের অবস্থা সংকটাপন্ন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। চিকিৎসার প্রয়োজনে তার মাথার খুলি আলাদা করে রাখা হয়েছে।

মঙ্গলবার দিকে রাজধানীর ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স অ্যান্ড হসপিটালে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়।

হাসপাতালটির যুগ্ম পরিচালক প্রফেসর ড. মো. বদরুল আলম মণ্ডল বলেন, ‘আফসানার ব্লাডপ্রেশার ১২০/১৮০। তার কিডনি, লিভার ও হার্ট সচল রয়েছে। তবে তার মস্তিষ্ক স্বাভাবিক রেসপন্স করছে না। এ অবস্থায় তার ব্রেইনের ওপর প্রেশার কমাতে মাথার খুলি খুলে রাখা হয়েছে। তার ব্রেইনের ওপর প্রেশার কমে গেলে খুলি পুনরায় প্রতিস্থাপন করা হবে।’

বদরুল আলম আরো বলেন, ‘আমরা আফসানার চিকিৎসা চালিয়ে যাব। আগামীকাল সকাল ১০টার দিকে তার চিকিৎসার জন্য আরো একটি মেডিকেল টিম গঠন করা হবে।’

আফসানার বর্তমান অবস্থা জানতে চাইলে এই চিকিৎসক বলেন, ‘প্রথম দিনের পর গত পরশু রাতে তিনি আবার স্ট্রোক করেন। এরপর রাত ১২টা থেকে ৩টা পর্যন্ত পুনরায় তার অস্ত্রোপচার করা হয়।’

কোনো কোনো গণমাধ্যমের খবরে আফসানা মারা গেছেন উল্লেখ করে সে সম্পর্কে জানতে চান সাংবাদিকরা। জবাবে ড. মো. বদরুল আলম মণ্ডল বলেন, ‘কেউ ন্যাচারেলি ডেড না হওয়া পর্যন্ত আমরা তাকে ডেড বলব না।’

গত ১২ মার্চ কাঠমান্ডুতে ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিধ্বস্ত হয় ইউএস-বাংলার বিমান। এ সময় ক্রু, যাত্রীসহ মোট ৭১ আরোহী ছিলেন বিমানে। তাদের মধ্যে ২৬ বাংলাদেশিসহ ৫১ জন নিহত হন। অন্য তিন বাংলাদেশির লাশ এখনো শনাক্ত না হওয়ায় নেপাল থেকে আনা যায়নি।

পাইলট আবিদের স্ত্রীর অবস্থা এখনো সংকটাপন্ন

নেপালে বিধ্বস্ত হয়ে নিহত ইউএস-বাংলার পাইলট আবিদ সুলতানের স্ত্রী আফসানা খানমের অবস্থা এখনো সংকটাপন্ন। তবে তার হার্ট, কিডনি, লিভারসহ বিভিন্ন অঙ্গ-প্রতঙ্গ স্বাভাবিকভাবে কাজ করছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

সোমবার থেকে তিনি রাজধানীর নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে রয়েছেন।

মঙ্গলবার আগারগাঁওয়ের নিউরো সাইন্স হাসপাতালে ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান হাসপাতালটি যুগ্ম পরিচালক ডা. বদরুল আলম।

তিনি জানান, তার অবস্থা সংকটাপন্ন। তবে তার হার্টবিট আছে। কিডনি, লিভার সবই কাজ করছে। ব্লাড প্রেশার ১২০ বাই ৮০। আমরা তার চিকিৎসা চালিয়ে যাবো। শরীর স্বাভাবিকভাবে চলছে, আমরা তো তাকে মৃত বলতে পারি না।

তিনি বলেন, এ অবস্থায় আফসানা খানমকে দেশের বাইরে নেয়া সম্ভব নয়। আগামীকাল বুধবার পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে, কি হয় সেটা দেখতে।

সাত সদস্যের মেডিকেল বোর্ড তাকে পর্যবেক্ষণ করছে বলেও জানান ডা. বদরুল আলম।

এর আগে রবিবার সকালে রাজধানীর উত্তরার বাসায় আফসানা খানম ব্রেইন স্ট্রোক করেন। এসময় তাকে আগারগাঁওয়ের নিউরো সাইন্স হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়।

সোমবার সকালে তিনি ফের স্ট্রোক করলে দ্বিতীয় দফায় অস্ত্রোপচার করা হয়। অপারেশনের পর তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। চিকিৎসকরা জানিয়েছিলেন, তার অবস্থা সংকটাপন্ন। ডায়াবেটিস থাকার কারণে অবস্থা আরো জটিল বলেও জানান তারা।

উল্লেখ্য, ঢাকা থেকে ৭১ আরোহী নিয়ে গত ১২ মার্চ দুপুরে নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন বিমানবন্দরে নামার সময় ইউএস-বাংলার ফ্লাইট বিএস-২১১ রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়ে এবং আগুন ধরে যায়।

এতে বিমানের ৫১ আরোহী নিহত হন। উড়োজাহাজে চার ক্রুসহ ৩৬ বাংলাদেশি ছিলেন। এদের ২৬ জনই নিহত হয়েছেন। গতকাল শনিবার পর্যন্ত ২৮ লাশ সনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ১৭ জন বাংলাদেশি রয়েছেন। বাকিদের মধ্যে ১০ জন নেপালি ও একজন চীনের নাগরিক।

ওই দুর্ঘটনায় বিমানের পাইলট আবিদ সুলতান নিহত হন। সোমবার তাকে বনানী সামরিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। জানা গেছে, পরপর চারটি ল্যান্ডিংয়ের পরেও তাকে নেপালে ওই ফ্লাইট নিয়ে যেতে হয়েছিল। এ নিয়ে মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টা আগেও ক্যাপ্টেন আবিদ ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স ছাড়ার জন্য তোড়জোড় করেছিলেন।


শেয়ার করুন:

রিপ্লাই/মন্তব্য করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন