যুক্তরাষ্ট্রে চলছে ট্রাম্প-বাইডেনের যুদ্ধ। সেই যুদ্ধের চূড়ান্ত লড়াই আজ মঙ্গলবার। বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে আজ ভোটাভুটি অনুষ্ঠিত হবে। পরবর্তী চার বছরের জন্য রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প নাকি ডেমোক্রেটিক প্রার্থী জো বাইডেন ক্ষমতায় আসবে তা আজ জানা যাবে।

নির্বাচনী সব জরিপেই এগিয়ে রয়েছেন বাইডেন। তবে এটাই শেষ কথা নয়। সবশেষ এক জরিপে বলা হয়েছে, দোদুল্যমান রাজ্যগুলোতে এগিয়ে রয়েছেন ট্রাম্প। আর এই পূর্বাভাস জরিপ প্রতিষ্ঠানটি ট্রাফালগার গ্রুপ। ২০১৬ সালে এই প্রতিষ্ঠানটি ট্রাম্পের জয়ের ভবিষ্যতবাণী করেছিল।

নির্বাচেনের বহু আগে থেকেই প্রায় সব জরিপেই ট্রাম্পের চেয়ে এগিয়ে ছিলেন বাইডেন। করোনাভাইরাস মহামারির কারণে এগিয়ে থাকার এই ব্যবধান আরও বাড়িয়ে দেয়। তবে সাম্প্রতিক কয়েক সপ্তাহে জরিপে কিছুটা এগিয়েছেন ট্রাম্প।

তবে এতকিছুর পরও মার্কিন নির্বাচন আসলে এতটা সরল নয়। কারণে দেশটি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী হতে পপুলার ভোট বা জনগণের ভোট খুব একটা মাইনে রাখে না। বরং ৫৩৮ জন ইলেকটোরাল কলেজ সদস্যের ভোটে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিটি অঙ্গরাজ্যের ভিন্ন ভিন্ন সংখ্যক ইলেকটোরাল ভোট আছে। দুটি ছাড়া প্রতিটি অঙ্গরাজ্যের নিয়ম হলো- যে প্রার্থী সবচেয়ে বেশি পপুলার ভোট পাবেন, তিনি ওই রাজ্যের সবগুলো ইলেকটোরাল ভোট পেয়ে যাবেন। এভাবে সবগুলো রাজ্যের ইলেকটোরাল ভোট যোগ হয়ে যে প্রার্থী ২৭০টি ভোট পাবেন, তিনিই যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হবেন।
উল্লেখ্য, গত পাঁচটি নির্বাচনের মধ্যে দুটোতেই কম পপুলার ভোট পেয়েও ইলেকটোরাল কলেজ পদ্ধতিতে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প ও জর্জ বুশ। সবশেষ ২০১৬ সালের নির্বাচনে রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প ডেমোক্রেট প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের চেয়ে প্রায় ৩০ লাখ কম পপুলার ভোট পেয়েও প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন।

মন্তব্য করুন

আপনার কমেন্ট লিখুন
আপনার নাম লিখুন