ঝিনাইদহের শৈলকুপায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী উলফাত আরা তিন্নির মৃত্যুর ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত জামিরুলকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বুধবার (৭ অক্টোবর) ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আনোয়ার সাঈদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ঝিনাইদহ থেকে মঙ্গলবার মধ্যরাতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। অপরদিকে গতকাল মঙ্গলবার তিন্নির ময়নাতদন্তের রিপোর্টে ধর্ষণের আলামত মেলেনি বলে জানান কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরএমও ডা. তাপস কুমার সরকার।

ময়নাতদন্তের রিপোর্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, তিন্নির ময়নাতদন্ত রিপোর্টে ধর্ষণের কোনো আলামত পাওয়া যায়নি। মূলত এটি ছিল আত্মহত্যা।

গত ১ অক্টোবর (বৃহস্পতিবার) রাতে বড় বোন মিন্নির সাবেক স্বামী একই গ্রামের জামিরুল তিন্নিদের বাড়িতে দুই দফা প্রবেশ করে হামলা-ভাঙচুর ও তিন্নির ওপর পাশবিক নির্যাতন চালায়। পরে রাত ১২টার দিকে শোয়ার ঘর থেকে সিলিং ফ্যানে ঝুলন্ত অবস্থায় তিন্নির মরদেহ উদ্ধার করেন প্রতিবেশীরা।

পরিবার ও স্বজনদের দাবি, তিন্নি ধর্ষণের শিকার হয়ে লজ্জা ও ক্ষোভে আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন। শুক্রবার (২ অক্টোবর) রাতে তিন্নির মা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে আটজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

মন্তব্য করুন

আপনার কমেন্ট লিখুন
আপনার নাম লিখুন