প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় রয়েছে বলেই নভেল করোনাভাইরাসসহ নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগে দেশের মানুষ স্বস্তিতে আছে। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে আজ শনিবার সকালে দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ যে জনগণের সংগঠন, চলমান দুর্যোগের সময় তা আবারও প্রমাণিত। তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় রয়েছে বলেই দেশের মানুষ স্বস্তিতে আছে।

আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আজ শনিবার সকাল ১০টায় গণভবনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সভা অনুষ্ঠিত হয়। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কিছু রাজনৈতিক দলের সমালোচনা করে বলেন, ‘কেন তারা সংকটে দেশের মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে বক্তৃতা-বিবৃতির মধ্যে থাকল?’

করোনা সংকটের কারণে প্রায় সাত মাস পর বৈঠকে বসে আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদ। শুরুতেই দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘করোনা সংকট এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগে প্রশাসনের পাশাপাশি সারা দেশে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মানুষের জন্য আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করেছে। মানুষের কল্যাণে সম্পৃক্ত থেকে করোনাকালে পাঁচ শতাধিক আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী প্রাণ হারিয়েছেন বলে জানান শেখ হাসিনা।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা মানুষের পাশে আছি। মানুষের পাশে থাকব এবং আমি দেশবাসীকে এটুকু বলতে চাই যে জনগণের সংগঠন হচ্ছে আওয়ামী লীগ। আর আওয়ামী লীগ জনগণের পাশে আছে এবং সেটা এই দুর্যোগ… এই করোনা মহামারিতে প্রমাণ হয়েছে। জনগণের আস্থা-বিশ্বাসটা হচ্ছে আমাদের একমাত্র সম্বল। সেটাই আমাদের শক্তি।’

মানুষের কল্যাণে তাঁর সরকারের নেওয়া উদ্যোগ তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বিভিন্ন দেশে কর্মরত প্রবাসীদেরও পাশে দাঁড়িয়েছে সরকার। তবে প্রধানমন্ত্রীর আক্ষেপ, কিছু মানুষ কাজ নয়, শুধু কথা বলায় পারদর্শিতা দেখাচ্ছে।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘তারা লিপ সার্ভিস দিয়েছে। মিডিয়া আছে, আর আমি তো প্রাইভেটে টেলিভিশন দিয়েছি, প্রাইভেটে রেডিও দিয়েছি… অনেক পত্রিকা… যে যার মতো আপন মনের মাধুরী মিশিয়ে বলেই যাচ্ছে… কিন্তু তাদের মাঠে মানুষের পাশে দেখা যায়নি… তাই কেউ যদি বিচার করে আওয়ামী লীগের যে তারা কতটুকু করল আর কতটুকু করল না, তারা নিজের আয়না দিয়ে চেহারা দেখে না।’

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ‘এই দেশে তো গরিব মানুষের সেবা করার অনেক রকম প্রতিষ্ঠান। অনেক রকম কার্যক্রম আমরা দেখি, কিন্তু এই করোনাকালে তাঁদের কোনো কার্যক্রম আমরা দেখিনি। এটা হলো বাস্তবতা। তখন সবাই ঘরে… তখন আর মানুষের পাশে কেউ নেই। মানুষের পাশে আওয়ামী লীগই আছে।’

করোনা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক শক্তি প্রমাণ হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী সারা দেশে মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি হালনাগাদ করে সংগঠনকে আরো শক্তিশালী করা তাগিদ দেন।

এদিকে বৈঠক শেষে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল-আলম হানিফ জানান, মহানগর আওয়ামী লীগের নেতারা যে কমিটি দিয়েছেন, সেটি যাচাই-বাছাই করে সংশোধনী আকারে প্রকাশ করার কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ ছাড়া প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ বলেন, সারা দেশে কমিটিতে স্বাধীনতাবিরোধী বিতর্কিত কেউ যেন না ঢুকতে পারে, এ জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশনা দিয়েছেন।

রিপ্লাই দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here