বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সাবেক মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদকে মুহূর্তের মধ্যে তিনটি গুলির মুখে পড়তে হয়। চেকপোস্টে তিনি হাত উঁচু করে পুলিশের উদ্দেশে কিছু বলতে চাচ্ছিলেন। সেই মুহূর্তে তাকে গুলি করা হয়।

সিনহা হত্যাকাণ্ড প্রত্যক্ষ করেছিলেন এমন একজন এ বর্ণনা দিয়েছেন একটি বেসরকারী টিভি চ্যানেলকে।

কক্সবাজারের টেকনাফ মেরিনড্রাইভে সেনা, পুলিশ ও বিজিবি’র তল্লাশি চৌকি রয়েছে। অন্যান্য চেকপোস্টের থেকে শামলাপুর পুলিশ চেকপোস্টটি একটু আলাদা। অন্য চেকপোস্টগুলো নির্জন জায়গায় হলেও এই চেকপোস্টটির পাশে বাজার, মসজিদ, লোকালয় রয়েছে।

৩১ জুলাই ঘটনার পরদিন ঈদের নামাজ পড়িয়ে গ্রামের বাড়ি যান ঘটনাস্থলের মসজিদের ইমাম। ছুটি শেষে ফেরার পর পরই তার সাথে কথা হয় সময় নিউজের। মসজিদের মোয়াজ্জিন এবং মাদ্রাসার কয়েকজন শিক্ষার্থী কী দেখেছিলেন জানান তিনি।

মসজিদের মোয়াজ্জিন বলেন, ‘একজন ভদ্রলোক উপরে হাত তুললো। আমি ছাদ থেকে কথা শুনিনি, তবে মনে হলো ভদ্রলোক হাত উঁচু করে কিছু বলছেন। হঠাৎ করেই ৩টি গুলি করা হলো। সেকেন্ড হবে না, একটার পর একটা গুলি চালানো হলো।’

সিনহার মৃত্যুর পর ৩ জনের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন তৎকালীন বাহারছড়া তদন্তকেন্দ্রের প্রধান লিয়াকত। এরমধ্যে ওসি ও এসপিও রয়েছে। হত্যার বিষয়ে কথা হলেও মাদক বা অস্ত্র উদ্ধারের কোনো তথ্য ফোনালাপে পাওয়া যায়নি।

৩১ জুলাই রাত ৯টা ৩০ মিনিটে তৎকালীন বাহারছড়া তদন্তকেন্দ্রের প্রধান লিয়াকত তার ব্যক্তিগত মোবাইল থেকে তৎকালীন টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপের অফিসিয়াল নম্বরে ফোন করেন। তিন মিনিট কথা বলেন তারা।

এরপর ৯ টা ৩৩ মিনিটে মালখানার ইনচার্জ কনস্টেবল আরিফের ব্যক্তিগত নম্বরে ফোন করেন। তার সাথে ১ মিনিট কথা বলেন। এরপর ৯টা ৩৪ মিনিটে কক্সবাজারের পুলিশ সুপারের ব্যক্তিগত নম্বরে ফোন করেন লিয়াকত। সেখানে তাদের কথা হয় তিন মিনিট।

কথোপকথনে লিয়াকত ঘটনা সম্পর্কে এসপিকে জানান। কিন্তু সেখানে মাদক ও অস্ত্র পাওয়ার কোনো কথা উল্লেখ করেননি। এরপর ওসি প্রদীপ কুমার দাশের সাথে কথা হয় এসপির।

এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, ঘটনাটি তদন্ত হচ্ছে। ঘটনায় এসপি’র সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেলে তাকেও আইনের আওতায় আনা হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘এসপির নাম যদি আসে আমরা দেখবো, যার নাম আসে দেখবো। আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কাউকেই ছাড় দিবেন না।’

তিনি আরো বলেন, ‘সাবেক মেজর সিনহার মৃত্যুর ঘটনা তদন্তে যারাই দোষী সাব্যস্ত হবে, তাদেরকে বিচারের আওতায় আনা হবে। তদন্তের মধ্যে যারা দোষী সাব্যস্ত হবেন কিংবা যারা দোষ করেছেন বলে প্রমাণিত হবে তদন্ত রিপোর্ট অনুযায়ী তাদের বিচার করা হবে।’

গত ৩১ জুলাই রাতে শামলাপুরের একটি পাহাড়ি এলাকায় শুটিং শেষে ফেরার পথে তল্লাশির সময় পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর সাবেক মেজর সিনহা।

মন্তব্য করুন

আপনার কমেন্ট লিখুন
আপনার নাম লিখুন