কিম জং উনের চীন সফর, কিছুই জানে না চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

38

উত্তর কোরিয়ার সবুজ এবং হলুদ রঙয়ের একটি বিশেষ ট্রেনের বেইজিং যাত্রা ঘিরে ব্যাপক রহস্য দেখা দিয়েছে। এই বিশেষ ট্রেনের বেইজিং যাত্রার সময় কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়; যা দেখে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, বিশেষ এই ট্রেনে চেপে উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন চীন সফরে গেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

কিমের চীন সফর ঘিরে যে রহস্য শুরু হয়েছে তা যদি সত্যি হয়; তাহলে ২০১১ সালে উত্তর কোরিয়ার ক্ষমতায় আসার পর দেশের বাইরে এটিই হবে তার প্রথম সফর। এমনকি চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্র নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসতে কিছুদিন আগে রাজি হয়েছে কার্যত বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন কোরীয় উপদ্বীপের এ দেশটি।

সোমবার মার্কিন সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গ এক প্রতিবেদনে দাবি করে যে কিম জং উন চীন সফর করছেন। নাম প্রকাশ না করে তিনটি সূত্রের বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যমটি একথা জানায়। তাদের বরাত দিয়ে খবর প্রকাশ করলেও সত্যতা নিশ্চিত করতে পারেনি রয়টার্স।

এদিকে সোমবার জাপানের সংবাদমাধ্যমগুলো দাবি করে, উত্তর কোরিয়ার উচ্চপর্যায়ের একজন কর্মকর্তা ট্রেনে করে বেইজিং পৌঁছেছেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে কিমের সম্ভাবনাময় বৈঠকের আগে এই সফরের গুজব উঠলো।  বেইজিং প্রথম থেকেই গোপনীয়তাপূর্ণ ও বিশ্ব সম্প্রদায় থেকে অনেকটা বিচ্ছিন্ন উত্তর কোরিয়ার ঘনিষ্ঠ মিত্র।

প্রাত্যাহিক সংবাদ সম্মেলনেই কিম জংয়ের চীন সফর সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলে হুয়া চুনিং বলেন,  তিনি এ সম্পর্কে কিছু জানেন না। সোমবার বিকেলেও বেইজিংয়ে উত্তর কোরীয় দূতাবাস থেকে কেউ টেলিফোনে এ সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দেননি

এদিকে, দক্ষিণ কোরিয়ার রক্ষণশীল দৈনিক চুসান ইলবো দেশটির অজ্ঞাত জ্যেষ্ঠ গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বলছে, চীন সফরে যাওয়া উত্তরের প্রতিনিধি দলে কিমও রয়েছেন। তবে মঙ্গলবার বেইজিং ছেড়েছেন তিনি।

দক্ষিণ কোরিয়ার বামপন্থী সংবাদমাধ্যম ‘হ্যানকিওরেহ’ অবশ্য বলছে, সোমবার বিকেলে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে বৈঠক করতে বেইজিংয়ে গেছেন কিম। বেইজিং ত্যাগের আগে অজ্ঞাত স্থানে ওই বৈঠক হয়েছে। তবে নির্দিষ্ট কোনো সূত্রের বরাত দেয়নি এই সংবাদমাধ্যম।

Source: Trillion business Network

মন্তব্য করুন

আপনার কমেন্ট লিখুন
আপনার নাম লিখুন